image

Md. Abdullah-Al Hasan
এক কথিত আহলে হাদীছের প্রশ্নঃ কার মতের নাম হানাফী মাযহাব??????????????????

ইমাম আবু হানীফা রহ.-র শতকরা প্রায় ষাটভাগ মাসআলার বিরোধী ছিলেন তাঁর ছাত্রবর্গ-ইমাম আবু ইউসুফ, ইমাম মুহাম্মাদ, ইমাম যুফার রহ.। তাহলে হানাফী মাযহাব চলে কার মতামতের ওপর ভিত্তি করে? আর কার মতের নাম-ই-বা হানাফী মাযহাব?

এ প্রশ্ন আমার নয়, আমার এক ভাইয়ের। তার আইডি-নাম ‘‪#‎সত্যপ্রচার‬’। বেচারা উপরোক্ত প্রশ্নসম্বলিত পোস্ট দেয়ার পর কমেন্টে আমাকে মেনশন করেছেন। সে সুবাদেই তাঁর মূল্যবান প্রশ্নটি আমার নযরে আসে। তাঁর এই কষ্ট-সহিষ্ঞুতার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

তার অমূল্য! প্রশ্নের ধরণ থেকে বুঝা যায় যে, তার মতে- হানাফী মাযহাব মানে ইমাম আবু হানীফা রহ.-র মাযহাব এবং হানাফী মানে শুধু ইমাম আবু হানীফা রহ.-র মতানুযায়ী আমলকারী হওয়ার কথা। কিন্তু সেখানে আরো ইমাম রয়েছে। তাঁরা হলেন তাঁরই ছাত্র। তাতেও সমস্যা ছিলো না, যদি তাঁর সাথে তাঁদের মতোবিরোধ না হতো। কিন্তু শুধু মতোবিরোধই হয়নি, হয়েছে প্রায় ষাট শতাংশ মাসআলায়। আবার হানাফীদের আমলও একেক মাসআলায় একেক জনের মতের ওপর। তাহলে সেই মাযহাবকে ‘‪#‎হানাফী_মাযহাব‬’ বলা হয় কী করে? তাই তিনি জানতে চেয়েছেন- কার মতের নাম হানাফী মাযহাব? হানাফী মাযহাব চলে কার মতামতের ওপর ভিত্তি করে?

মুহতারামের পাশ-দিক বা উত্তর-দক্ষিণ সম্পর্কে আমার কিঞ্চিত ধারণাও নেই। তবে তার পোস্ট দেখে মনে হয়েছে যে, প্রশ্নসম্বলিত এই পোস্ট তৈরী করার জন্য তিনি বহু ঘাটের পানি খেয়েছেন এবং তার দৃষ্টিতে এমন প্রশ্ন হলো অব্যর্থ প্রতিরোধক। যার উত্তর দেয়া হানাফীদের পক্ষে অসম্ভব। তাই এমন পোস্ট হলো হানাফী মাযহাবভুক্তদেরকে লা-দীনিয়্যাতের সিঁড়ি লা-মাযহাবিয়্যাতের প্রতি ধাবমান করার কার্যকর মহৌষধ। অধম ছাড়াও লা-মাযহাবিয়্যাতের আস্ফালন বিরোধী আরো একাধিক শায়খকে ট্যাগ ও ম্যানশন করা থেকে এ কথাই প্রমাণিত হয়। তার সমীপে আমার প্রশ্ন হলো- মুহতারাম! আপনার ওই মরীচীকানির্ভর আত্মতৃপ্তি ও অন্ধত্বনির্ভর বদ্ধমূল ধারণার কি সামান্য বাস্তবতাও আছে? আসুন, তা…ই অনুসন্ধান করি!

আদতে এ হলো চরম বাচ্চাসুলভ প্রশ্ন। নামকরণ-বিধি সম্পর্কে যার সামান্য ধারণাও আছে, সেও এমন প্রশ্ন করবে না। আমরা যখন মেখল মাদ্রাসায় মীযান জামাআতে পড়ি, তখনই ‘যর্রাদী’র হাশিয়ায় পড়েছি- নামকরণের জন্য সর্বাঙ্গীন মিল শর্ত নয়। ‘আদনা মুনাসাবাতে’র ওপর ভিত্তি করেও নাম করণ করা হয়; বরং এমন নামকরণের সংখ্যাই অনেক। ঢাকা থেকে কুয়াকাটা যাওয়ার পথে আমতলী উপজেলা অতিক্রম করে কিছু দূর গেলেই নযরে আসবে ‘আলীপুর’। কথিত আছে- ওখানে আশপাশ মিলিয়ে ব্যক্তির নামের সাথে ‘পুর’যুক্ত স্থান ছত্রিশটি। মুন্সীগঞ্জে একটি জায়গার নাম ‘মোস্তফাগঞ্জ’। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে ট্রেনে কুমিল্লায় গেলে দেখবেন-‘হাজীগঞ্জ’। সেখানে আরো ‘গঞ্জ’ রয়েছে। জামালপুর-কেরানীগঞ্জ সহ এমন নামের অভাব নেই।

প্রণিধানযোগ্য বিষয় হলো- এক দিয়ে যেমন ‘পুর’ হয় না, ‘গঞ্জ’ও হয় না। তাহলে ব্যক্তির নামের সাথে তা যুক্ত করে স্থানের নাম কিভাবে রাখা হলো? যদি বলা হয়- ওখানে ওই নামের আরো অনেক ব্যক্তি ছিলো, তাদের মিলিয়েই …..পুর বা ….গঞ্জ। তাহলে প্রশ্ন হলো- ওখানে ওই নামের বাইরে অন্য কোনো নামধারীর কি নিবাস ছিলো না? যেহেতু আলী, জামাল বা মোস্তফার নামে গ্রাম বা স্থনের নাম, তো ওই গ্রাম বা স্থানের পরিধির মাঝে অন্য লোকের বাস করার অধিকার থাকে কি করে? ওপরে আস্ফালনকারী বন্ধুর বাড়ীটি কোথায়, তাতো জানি না। দুর্ভাগ্যক্রমে কোনো ‘পুর’ বা ‘গঞ্জ’ বা ওই জাতীয় কোথাও হলে তো তার ঠিকানাই পরিবর্তন করতে হবে! আল্লাহ না করুক। আসল কথা হলো- যদি ব্যক্তির নামে কোনো স্থানের নাম হয়, তা হয় সাধারণতঃ ওখানের প্রভাবশালী কোনো ব্যক্তির নামে বা সামান্য কোনো যোগাযোগকে কেন্দ্র করে। এর অর্থ এ-নয় যে, সেখানে আর কেউ ছিলো না বা থাকতে পারবে না।

এবার আসল কথায় আসি। মুহতারামের প্রশ্নটি যেমন কোনো ইলমী প্রশ্ন নয়, বরং বিদ্বেষ একটি ভুল বুঝকে গাঢ় করে প্রশ্নটির জন্ম দিয়েছে, তাই উত্তর দানের ক্ষেত্রেও সেই ভুল বুঝটি অপনোদনের চেষ্টাই করা হবে শুধু। তা…ই নিম্নরূপ-

ইমাম আবু হানীফা রহ.-র একটি ‘মাকতাবুল ফিকর’- চিন্তাকেন্দ্র বা গবেষণাবোর্ড ছিলো। যার সদস্য ছিলো ওই যুগের কুরআন, হাদীছ সহ উলূমে শরঈয়্যার পারদর্শী চল্লিশজন ‘মারজিউন নাস’ ইমাম। মাওলানা আব্দুর রহীম লাজপুরী রহ. তাঁর ‘ফাতাওয়া রহীমিয়্যা’য় তাঁদের তালিকা উল্লেখ করেছেন। ইমাম আবু হানীফা রহ. ছিলেন তাদের প্রাণপুরুষ, পরিচালক, প্রধান ও নির্দেশক। তাঁকে কেন্দ্রে করেই তাঁরা আবর্তিত হতেন। মাসআলা উদ্ভাবনকে কেন্দ্র করে নিয়মিত গবেষণার ইমাম আবু হানীফা রহ.-ই ছিলেন প্রবর্তক। ওই চিন্তাকেন্দ্রের এতো প্রভাব ছিলো যে, দুনিয়ার তাবৎ ফিকহী চিন্তাকেন্দ্র সেখান থেকে উপকৃত হয়েছে এবং

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s