স্রষ্টা ও পাথর সৃষ্টি-নাস্তিকদের জবাবে…

মানুষ যখন স্রষ্টা অবিশ্বাস করতে চায় তখন বিভিন্নরকম অযুক্তি,কুযুক্তি দিয়ে থাকে।সে আদৌ একবার চিন্তা করে না তার যুক্তির সাথে স্রষ্টার অস্তিত্বের সম্পর্ক কতটুকু?তারপরো আল্লাহ সুবহানাহুওয়াতাআলা তাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দিয়েছেন।আর সে উত্তর দিয়ে স্রষ্টা বিশ্বাসীরা অনেক আগ থেকেই নাস্তিকদের উপর প্রভাব বিস্তার করতে সমর্থ হয়েছে।
নাস্তিকদের একটা অতি পরিচিতি paradox
স্রষ্টা কি সব করতে পারেন?
তিনি কি এমন পাথর বানাতে পারেন যা তিনি নিজেই সরাতে পারেন না?
এরকম আরো কিছু প্রশ্ন করে।যেমন- তিনি কি এমন স্যান্ডোইচ বানাতে পারেন যা তিনি নিজেই শেষ করতে পারবেন না?
এসব প্রশ্ন করার সাথে সাথে আপনি বুঝতে পারবেন যে তার উদ্দেশ্য সত্য জানা নয়।মুলত বিশ্বাসীদের কিছুটা বিব্রত করা।আমি নিজেই কয়েকবার এরকম প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছি।
এরকরম আরো কিছু প্রশ্ন জেনে নিই যা আল্লাহ করতে পারেন কি পারেন না এ বিষয় নিয়ে করা হয়।
১,তিনি কখনো খারাপকে ভালবাসতে পারেন কি?
২,তিনি তার মত কোন স্রষ্টা সৃষ্টি করতে পারেন কি?
৩,তিনি আপনাকে তার রহমত, তার রাজ্য থেকে বের করে দিতে পারেন কি?
৪,তিনি মানুষ হতে পারেন কি?
৫,তিনি নিজের মৃত্যু ঘটাতে পারেন কি?
উপরের ২ নং প্রশ্নটি আর পাথর, স্যান্ডোইচের প্রশ্নগুলো একই শ্রেনীর।আর অপরদিকে ১,৩,৪,৫ প্রশ্ন একই শ্রেনীর।আমি দুই অংশে এর উত্তর দিব যুক্তি দিয়ে।তারপর ইনশাল্লাহ কোরানের মাধ্যমে ব্যাখ্যা করব।
১ম শ্রেনীঃস্রষ্টা নিজেই অসীম।তিনি যদি একটি পাথর সৃষ্টি করতে হয় যা তিনি নিজেই সরাতে পারবেন না তাহলেই পাথরটিকে অবশ্যই অসীম ভরের হতে হবে ।অপরদিকে তাঁর মত আরেকজন স্রষ্টা সৃষ্টি করতে হলে ওই সৃষ্টিকেও অসীম হতে হবে।দুটি অসীম জিনিস এক্ত্রে থাকতে পারে না।কারন একটি দ্বারা আরেকটি সীমাবদ্ধ হয়ে যায়।তাই এ প্রশ্ন গুলো যুক্তি বিরোধী।যেহেতু স্রষ্টা যুক্তি বিরোধী কোন কাজ করতে পারেন না তাই এ প্রশ্নের কোন অবকাশ নেই।
২য় শ্রেনীঃএ প্রশ্নগুলো উত্তরে যদি হ্যাঁ বা না দু টোই দিয়েই দেয়া যায় ।
যদি বলি হ্যাঁ তিনি পারেন,কিন্তু ঘটাবেন না, তাহলে তো উত্তর পাওয়াই গেল।কারন এগুলো না ঘটানো পর্যন্ত তিনি ঈশ্বর থাকছেন এগুলো ঘটানো মানে ঐশ্বরিকতা হারানো।আর সেটা তিনি করবেন না এটা সহজ উত্তর।
যদি বলি তিনি পারেন না।তাহলে ও কোন সমস্যা নেই।আপনি খেয়াল করলে দেখবেন এগুলো প্রকৃতপক্ষে ঘাটতি।অতএব ঘটাতে না পারাই পূর্নতা।আপনাকে তার রহমত থেকে বের করে দেয়া তাঁর একটা ঘাটতি।এটা না থাকাটাই স্রষ্টারপূর্নতা।আর এ পূর্নতাই স্রষ্টার জন্য মানায়।আরেকটি উদাহরন আল্লাহ কোরানে বলেছেন
“ প্রতি পালক ভুল করেন না এবং ভুলেও যান না”সুরা তাহা-৫২
এখানে আপনার প্রশ্ন করা বোকামি হবে “তাহলে এমন কিছু আছে যা আল্লাহ করতে পারেন না?”বরং ভুল না করাই পূর্নতা।বিধাতাসুলভ।
St Augustine স্রষ্টা সর্বশক্তিমান সব করতে পারেন এবিষয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলছেন-স্রষ্টা যা করতে চান তাই তিনি করতে পারেন।চাইলে তিনি paradox ও সমাধান করতে পারেন।কিন্তু যেহেতু তিনি যৌক্তিক কাজ ছাড়া করেন না তাই তিনি এসকল paradox সমাধান করবেন না।
কোরআন কি বলে?
আল্লাহ কোথাও বলেন নি আল্লাহ সব করতে পারেন।বরং তিনি বলেছেন আল্লাহ সর্ববিষয়ে ক্ষমতাবান।আল্লাহ কোরানের বিভিন্ন জায়গায় বলেছেন
“আল্লাহ সর্ববিষয়ে সর্বশক্তিমান” (সুরা বাকারা-১০৬,১০৯,১৮৪,আলে ইমরান-২৯,নাহল-৭৭,ফাতির-১)
আল্লাহ কুরানে সূরা বুরুজে ঘোষনা দিচ্ছেন-
“তিনি যা ইচ্ছা তাই করেন”সুরা বুরুজ-১৬
আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে আল্লাহ শুধুমাত্র বিধাতাসুলভ কাজই করতে ইচ্ছা করেন।বিধাতার বৈশিষ্ট্য বিরোধী কর্ম নয়।
তাই এসকল প্রশ্নের আদতে কোন ভিত্তি নেই।

ফেসবুকে যোগাযোগ

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s