মাজহাব কি মুসলমান বিভক্তির কারন, না যারা মাজহাব মানে না (সাধারন মুসলমান) তারা মুসলমান বিভক্তির কারন …..

নুমান হুসাইন
আমারা যারা মাজহাব মানি তারা সকলেই একটা বিষয়ে একমত যে, হানাফী মাযহাব, (২) মালেকী মাযহাব (৩) শাফেয়ী মাযহাব, (৪) হাম্বলী মাযহাব এর

কারো সাথে কারোর হিংসা-বিদ্বেষ নেই,
কারো সাথে কারোর ইসলামের মৌলিক (যেমন: ঈমান, আকিদা, রিসালাত পরকাল, হাশর ইত্যাদি..) বিষয়ে পার্থক্য নেই,

যা আছে তা হলো ইশতিহাদে (‘ইজতিহাদের শাব্দিক অর্থ, উদ্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্য যথাসাধ্য পরিশ্রম করা।
ইসলামী ফেকাহ শাস্ত্রের পরিভাষায় ইজতিহাদ অর্থ,কোরআন ও সুন্নায় যে সকল আহকাম ও বিধান প্রচ্ছন্ন রয়েছে সেগুলো চিন্তা-গবেষণার মাধ্যেমে আহরণ করা। যিনি এটা করেন তিনি হলেন মুজতাহিদ। মুজতাহিদ কুরআন ও সুন্নাহ থেকে যে সকল আহকাম ও বিধান আহরণ করেন সেগুলোই হলো মাযহাব। অথাৎ কুরআন ও সুন্নাহ থেকে যে সকল আহকাম ও বিধান আহরণ করে মুজতাহিদগণ যে সকল মতামত পেশ করেছেন তাকে মাযহাব বলে।যাদের কোরআন ও সুন্নাহ থেকে চিন্তা গবেষণার মাধ্যমে আহকাম ও বিধান আহরণের যোগ্যতা নেই তাদের কাজ হল মুজতাহিদদের আহরিত আহকাম অনুসরনের মাধ্যমে শরীয়তের উপর আমল করা।’) মতো-বিরোধ। এই মতোবিরোধ জায়েজ, কারো কোন গোনাহ হবে না, তবে সওয়াবের ক্ষেত্রে কম-বেশি হবে।

এই ইশতিহাদ মতরিরোধ যে জায়েজ এবং সবাই হকের উপর আছে এর একটি দলিল হলো:

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর ও আবু হুরায়রা রা. হুজুরের হাদীস বর্ণনা করেছেন, যখন কোন হাকীম (বিচারক ও মুফতী) কোন বিষয়ে ইজতিহাদ করে এবং তা সঠিক হয়, তবে সে দ্বিগুন সওয়াব পাবে। আর ইজতিহাদে যদি ভুল করে, তবুও সে একগুন সওয়াব পাবে। -বুখারী 2/109, মুসলিম 2/72, তিরমিজী 193

আমরা যারা হানিফী মাজহাব ( ইমাম হানিফার (রহ:) কোরআন এবং হাদিসের ব্যাখ্যা মানা) অনুসরণ করি , আমরা তো কখন বলি না যে অন্য ইমামদের মাজহাব এর ব্যাখ্যা ভুল আর আমরাই শুধু ঠিক।

এখন আমাদের কে দেখতে হবে যে,
আমাদের কে কারা বিভক্তি করতেছে,
কারা বলতেছে ‘তুমি মুহাম্মদি না হানিফী’,
কারা ইমামদের এখতেলাফি মাসালাহ নিয়ে মুসলমানদের মাঝে বিভাদ সৃষ্টি করতে চাই।

মাজহাব আমাদের বিভাদ-বিভক্ত করে না কিন্তু আজ কিছু নামধারি মুসলমান এই মাজহাব কে মুসলমানের বিভক্তির কারন বানাতে উঠে পড়ে লেগেছে।

ভাই আপনাদের সকলের কাছে আমার অনুরোধ যে, আমরা এই মাজহাব নিয়ে শুধু শুধু যেন বিভক্ত না হই। আমরা সবাই মুসলমান, আমরা একজন আরেকজনের ভাই। যখন কোন মুসলমান ভাই এর উপর কোন দুশমন আত্রমণ করবে তখন সে দেখবে না যে, সে কি হানফী না শাফেয়ী না মালেকী না হাম্বলী না লা-মাজহাবী না অন্য কিছু। সে শুধু দেখবে মুসলমান।

তাই ভায়েরা আমরা, এগুলো পরিহার করি। আর আল্লাহ আমাদের সকল উম্মতি মহাম্মদিদের এক হওয়ার তওফিক দান করুন। ——by @UC Browser

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s