ঈমানী জযবা

হযরত উমার (রা) ইসলাম গ্রহণ করেই
জিজ্ঞাস করলেন, “হে আল্লাহর রাসূল,
বর্তমানে মুসলমানদের সংখ্যা কত?”
মহানবী (সা) উত্তর দিলেন,
“তোমাকে নিয়ে চল্লিশ জন।” উমার
বললেন, “এটাই যথেষ্ট। আজ আমরা এই
চল্লিশ জনই
কাবা গৃহে গিয়ে প্রকাশ্যে আল্লাহর
ইবাদত করব। ভরসা আল্লাহর। অসত্যের
ভয়ে আর সত্য চাপা পড়ে থাকতে দেব
না।”
উমার (রা) সবাইকে নিয়ে উলংগ
তরবারি হাতে ‘আল্লাহু আকবর’
ধ্বনি দিতে দিতে কা’বা প্রাঙ্গণে গিয়ে উপস্থিত
হলেন। মুসলিম দলের সাথে হযরত উমার
(রা)-
কে এভাবে কা’বা প্রাঙ্গণে দেখে উপস্থিত
কুরাইশগন যারপর নাই বিস্মিত ও
মনুক্ষুন্ন হয়ে পড়ল। তাদের মনোভাব
দেখে হযরত উমার (রা)
পৌরুষকণ্ঠে গর্জন করে বললেন,
“আমি তোমাদের সাবধান করে দিচ্ছি,
কোন মুসল্মানের কেশাগ্র স্পর্শ
করলে উমারের তরবারি আজ
থেকে তোমাদের বিরুদ্ধে উত্তোলিত
হবে।”
কা’বায় উপস্থিত একজন কুরাইশ সাহস
করে বলল, “ হে খাত্তাব পুত্র উমার
তুমি কি সত্যই মুসলমান হয়ে গেলে?
আরবরা তো কদাচ প্রতিজ্ঞাচ্যুত হয়
না। জানতে পারি কি, তুমি কি জিনিস
পেয়ে এমন ভাবে প্রতিজ্ঞাচ্যুত হলে?”
হযরত উমার উচ্চকণ্ঠে জবাব দিলেন,
“মানুষ যার চেয়ে বেশী পাওয়ার
কল্পনা করতে পারে না, আমি আজ তেমন
জিনিস পেয়েই প্রতিজ্ঞাচ্যুত হয়েছি।
সে জিনিস হল…”আল কুরআন”
-প্রতিদিন কোরআন অধ্যয়ন করছেন
তো…?

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s